রবিবার, সেপ্টেম্বর 20, 2020
Home ফুটবল মোহনবাগান-এটিকে হওয়ায় গোষ্ঠ পালের পদ্মশ্রী ফেরত পাওয়ার আর আশা দেখছেন না...

মোহনবাগান-এটিকে হওয়ায় গোষ্ঠ পালের পদ্মশ্রী ফেরত পাওয়ার আর আশা দেখছেন না ছেলে নীরাংশু

২৮ বছর আগে ‘চাইনিজ ওয়াল’-এর পদ্মশ্রী, মূল্যবান সব ট্রফি, মানপত্র মোহনবাগান ক্লাবকর্তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল। তার পর সে সব পদকের আর হদিশ মেলেনি। মোহনবাগান ক্লাবের নাম বদলে যাওয়ার পরে বাবার পাওয়া পদ্মশ্রী-সহ অন্য পুরস্কারগুলো ফেরত পাওয়ার আর কোনও আশাই দেখছি না।”

এটিকে-তে মোহনবাগান মিশে যাওয়ায় শেষ আশাটুকুও হারিয়ে ফেলেছে গোষ্ঠ পালের পরিবার। ২৮ বছর আগে ‘চাইনিজ ওয়াল’-এর পদ্মশ্রী, মূল্যবান সব ট্রফি, মানপত্র মোহনবাগান ক্লাবকর্তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল। তার পর সে সব পদকের আর হদিশ মেলেনি।

থানা-পুলিশ করে কিছু মেডেল-ট্রফির ধ্বংসাবশেষ মাস কয়েক আগে কিংবদন্তি ফুটবলারের পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল। এটিকে-র সঙ্গে সংযুক্তির পরে বাকি পুরস্কারগুলোর খোঁজ যে আর পাওয়া যাবে না সে ব্যাপারে প্রায় নিশ্চিত গোষ্ঠ পালের ছেলে নীরাংশু পাল। কাঁদতে কাঁদতে আশি ছুঁই ছুঁই নীরাংশুবাবু বলছিলেন, “ক্লাবকর্তারা এখনই আর উচ্চবাচ্য করছেন না। মোহনবাগান ক্লাবের নাম বদলে যাওয়ার পরে বাবার পাওয়া পদ্মশ্রী-সহ অন্য পুরস্কারগুলো ফেরত পাওয়ার আর কোনও আশাই দেখছি না।”

গত ১৫-২০ বছর ধরে শতাব্দীপ্রাচীন ক্লাবের সঙ্গে গোষ্ঠ পালের পরিবারের কোনও সম্পর্ক নেই। সবুজ-মেরুনের কোনও অনুষ্ঠানে তাঁরা আর ডাক পান না। ‘চিনের প্রাচীর’-এর জন্মদিনেও ক্লাবের তরফ থেকে আর আসেন না কেউ। গোষ্ঠ পালকে কি তবে ভুলে গেল মোহনবাগান? গলায় আবেগের বাষ্প জড়িয়ে নীরাংশুবাবু বলেন, “বাবাকে হয়তো সম্মান জানাতে চায় না ক্লাব। কিন্তু মোহনবাগান সমর্থকদেরও কি গোষ্ঠ পালের প্রতি কোনও দায়িত্ব নেই?” প্রশ্ন তুলে দিচ্ছেন নীরাংশু পাল। বৃহস্পতিবার মোহনবাগানের সঙ্গে এটিকে-র ঐতিহাসিক চুক্তি হল। ভারতীয় ফুটবলে ঝড় উঠল সেই চুক্তি নিয়ে। গোষ্ঠ পালের পরিবারে খোঁজ নিয়ে জানা গেল, তাঁরা এই সম্পর্কে কিছুই জানতেন না। ক্লাব নিয়ে খোঁজখবরও রাখেন না। নীরাংশুবাবুর ছেলে গিরবান পাল বলছিলেন, “মোহনবাগান নিয়ে কোনও খবর আমি আর রাখি না। রাত বারোটার সময়ে টুইটারে দেখলাম এটিকে-মোহনবাগান মিশে গিয়েছে। এক বন্ধু মেসেজ করে জানতে চেয়েছিল, রবিবার একসঙ্গে বসে খেলা দেখব কিনা। রবিবার কী খেলা রয়েছে আমি খোঁজ রাখি না। পরে জানলাম ডার্বি রয়েছে। ক্লাবকে নিয়ে দুঃখ, কষ্ট, আনন্দ, ভাল লাগা কিছুই আর নেই।’’