বুধবার, সেপ্টেম্বর 23, 2020
Home সাম্প্রতিক অনূর্ধ্ব ১৮ জাতীয় ভলিবলে চ্যাম্পিয়ন হয়েও আনন্দ নেই বাংলার মেয়েদের, ফেরার টিকিট...

অনূর্ধ্ব ১৮ জাতীয় ভলিবলে চ্যাম্পিয়ন হয়েও আনন্দ নেই বাংলার মেয়েদের, ফেরার টিকিট এখনও নিশ্চিত হয়নি

আগামী সোমবার কলকাতার ভলিবল টেন্টে বিজয়ী বাংলার মেয়েদের সংবর্ধনা দেওয়া হবে।

জুনিয়র জাতীয় ভালিবল চ্যাম্পিয়নশিপে মেয়েদের বিভাগে অব্যাহত বাংলার দাপট। শুক্রবার বিকেলে অন্ধ্রপ্রদেশের কাডাপ্পায় অনূর্ধ্ব-১৮ বিভাগে জাতীয় জুলিয়র ভলিবল টুর্নামেন্টে ফের বিজয়ী বাংলার মেয়েরা। ফাইনালে কেরলের বিরুদ্ধে ৩-০ ফলে জিতল বাংলার মেয়েরা। এই বিভাগে টানা চারবার চ্যাম্পিয়ন হল বাংলার মেয়েরা। আর চারবারই কোচ বিশ্বজিত ঘোষ।

তবে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার আনন্দ বাংলার মেয়েদের মধ্যে দেখা যায়নি। কারণ ম্যাচ চলাকালীন অসুস্থ হয়ে পড়েন বংলার প্রিয়া বাড়ুই। তাকে কোর্ট থেকেই নিয়ে যেতে হয় হাসপাতালে। যে কারণে ফাইনাল জেতার পরও মেয়েরা গ্রুপ ছবি তুলতে পারেনি উদ্বেগে থাকা বংলার মেয়েরা। একইসঙ্গে কাডাপ্পা থেকে ফেরার ট্রেনের টিকিটও নিশ্চিত হয়নি বাংলার মেয়েদের। মাঝরাতেই মেয়েদের ফেরার ট্রেনে ওঠার কথা। কিন্তু রাত দশটা পর্যন্ত ট্রেনের টিকিট কনফার্ম হয়নি।

রাজ্য ভলিবল সংস্থার শীর্ষ কর্তা পল্টু রায়চৌধুরী জানিয়েছেন তিনি আপ্রাণ চেষ্টা করছেন টিকিট কনফার্ম করার। বললেন, “এই ব্যবস্থাটা জাতীয় ভলিবল সংস্থা বা অন্ধ্রপ্রদেশ ভলিবল সংস্থার করা উচিত। কিন্তু তাদের কর্তাদের দায়িত্বজ্ঞানহীনতা দেখে আমি বিস্মিত।”

আগামী সোমবার কলকাতার ভলিবল টেন্টে বিজয়ী বাংলার মেয়েদের সংবর্ধনা দেওয়া হবে।

টুর্নামেন্টে গ্রুপ লিগে বাংলাকে কঠিন বাধা পেরতে হয়েছে। অসম, বিহার এবং রাজস্থানকে হারিয়ে তারা কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে। তিনটি দলের মধ্যে বিহার এবং রাজস্থান যথেষ্ঠ শক্তিশালী দল বলে জানিয়েছেন কোচ বিশ্বজিত। শেষ আটেও বাংলার সামনে পড়েছিল কেরল। বিশ্বজিতের ভাষায়, “ওই ম্যাচটাই ছিল আমাদের কাছে টার্নিং পয়েন্ট। ০২ ফলে পিছিয়ে ছিলাম আমরা। সেই অবস্থায় পরিবর্ত হিসাবে নামিয়েছিলাম সুস্মিতা পাত্রকে। ও মূলত রক্ষণভাগের খেলোয়াড়। কিন্তু কেরলের বিরুদ্ধে ওর অসাধারণ তিনটে স্ম্যাশ বাংলাকে ম্যাচে ফিরিয়ে আনে। বাকিরাও দুরন্ত খেলেছে।” তারপর শেষ চারে কর্নাটকের বিরুদ্ধে স্বচ্ছন্দে ম্যাচ জিতে নেয় বাংলা। ফাইনালে ফের কেরলের বিরুদ্ধে জিতে চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলা।