শুক্রবার, নভেম্বর 27, 2020
Home টোকিও অলিম্পিক ২০২০ মীরাবাইয়ের স্বপ্নঃ টুর্নামেন্টে ওজন তোলার আগে যে চিৎকারটা করেন, টোকিওয় পদকজয়ের পর...

মীরাবাইয়ের স্বপ্নঃ টুর্নামেন্টে ওজন তোলার আগে যে চিৎকারটা করেন, টোকিওয় পদকজয়ের পর গোটা ভারতবর্ষ সেই চিৎকার করবে!

এখনও রিও অলিম্পিক্সের বিস্মৃতি তার স্মৃতিতে। ভুলতে পারেননি রিও-র ব্যর্থতা। তারপর থেকে তার পরিশ্রম আরও বেড়ে গিয়েছে। এতটাই কষ্ট পেয়েছিলেন রিও-র ব্যর্থতায় যে নিজের বোনের বিয়েতে পর্যন্ত যাননি। গত সাড়ে তিন বছর ধরে প্রত্যেকদিন তার অনুশীলনের সময় বেড়ে হয়েছে প্রায় সাত ঘণ্টা!

সেই মীরাবাই চানু মঙ্গলবার কলকাতায় হওয়া জাতীয় ভারত্তোলন চ্যাম্পিয়নশিপে সোনা জিতলেন ২০৩ কেজি ওজন তুলে! বিশ্রাম নেওয়ার সময় তার মুখে স্মিত হাসি। বললেন, ‘‘টোকিওতে ২১০ কেজি তুলতে না পারলে পদক জিততে পারব না। আজ আমি খুশি এই কারণে যে ১৯০ কেজির গণ্ডী পেরিয়ে ২০০ কেজির ঘরে পা রাখতে পেরেছি। গত বছর তাইল্যান্ডেও ২০০ কেজি তুলেছিলাম। মনে হচ্ছে আমার অনুশীলন সঠিক পথেই এগোচ্ছে।’’ তার অনুশীলন প্রসঙ্গে মীরাবাইয়ের সংযোজন, “খাওয়া দাওয়াটা সম্পূর্ণভাবে নিয়ন্ত্রণে রেখেছি। তার সঙ্গে কোচ বিজয় শর্মার পরামর্শ অনুযায়ী শরীরকে হাল্কা ও সচল রাখার নানারকমের এক্সারসাইজ।”

টোকিও অলিম্পিক্সে কোন দেশের ভারত্তোলকরা তার মূল প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারেন? মীরাবাই জানাচ্ছেন, কোরিয়া আর চিনের ভারত্তোলকরা। চিনের জিয়াং হুইহুয়া, হু জিহুই আর তাদের সঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়ার রি সং হুই। এই তিনজনই সাম্প্রতিককালে ধারাবাহিকভাবে ২০০ কেজির বেশি তুলছেন।অবশ্য থেমে নেই মীরাবাইও। প্রায় প্রত্যেকদিন অনুশীলনের পর দেখছেন কোরিয়া আর চিনের ভারত্তোলকদের ট্রেনিং ভিডিও, ওদের ম্যাচের ভিডিও। তার সঙ্গে দেখেন নিজের ট্রেনিং ভিডিও আর সাম্প্রতিককালের সেরা পারফরম্যান্সগুলোর ভিডিও।

মীরাবাই বলছেন, ‘‘এই দেখাটাই আমার মানসিক প্রস্তুতি। এটাই আমার মোটিভেশন তৈরি করে। মঞ্চে নামার আগের মুহূর্তে তার মুখে শোনা যায় চিৎকার। কারণ? মীরাবাই হেসে বললেন, ‘‘আত্মবিশ্বাসটা বাড়ানোর জন্য ওটা আমি করি। মনঃসংযোগটা জমাট করার জন্য মঞ্চে নামার আগে ওয়ার্ম-আপের সময় অল্প সময়ের জন্য স্থির হয়ে থাকি। তারপরই আমার ওই চিৎকারটা আপনারা শোনেন।’’ টোকিওর পোডিয়ামে দাঁড়ানোর পর গোটা ভারতবর্ষের মুখে ওই চিৎকারটা শোনাতে পারবেন বলে আশা মীরাবাইয়ের।