শনিবার, সেপ্টেম্বর 19, 2020
Home বক্সিং পদ্মবিভূষণ প্রাপ্ত মেরির লক্ষ্য এবার ভারতরত্ন, টোকিওয় নামার যোগ্যতা অর্জনের লড়াইয়ে ব্যস্ত

পদ্মবিভূষণ প্রাপ্ত মেরির লক্ষ্য এবার ভারতরত্ন, টোকিওয় নামার যোগ্যতা অর্জনের লড়াইয়ে ব্যস্ত

মণিপুরের এই বক্সার ২০০৬-এ পদ্মশ্রী হয়েছিলেন। তারপর ২০১৩-তে পদ্মভূষণ পেয়েছিলেন।

মেরি কমের লক্ষ্য এবার ভারতরত্ন। পদ্মবিভূষণ হয়েছেন ইতিমধ্যে। প্রথম ভারতীয় মহিলা হিসাবে। এই সম্মান তাকে আরও বেশি পরিশ্রম করার ইন্ধন জোগাবে বলেও মনে হচ্ছে মেরির। তাই বলেছেন, “পদ্মবিভূষণ পেয়ে আমি অনুপ্রাণিত। এবার আমার লক্ষ্য ভারতরত্ন পাওয়া। টোকিও অলিম্পিক্সে সোনা পেলে নিশ্চয়ই আমাকে ভারতরত্ন দেওয়ার কথা বিবেচনা করা হবে।”পদ্মবিভূষণ পেয়ে মেরির মুখে একইসঙ্গে সচিন তেন্ডুলকরের কথা। মেরির মন্তব্য, “প্রথম ভারতীয় ক্রীড়াবিদ হিসাবে ভারতরত্ন পেয়েছেন সচিন। তাহলে তো আমিও পেতে পারি। কিন্তু তার জন্য একটা অনন্য কীর্তির প্রয়োজন। যেমন অলিম্পিক্সের মতো ইভেন্টে সোনা জেতা। তাই এই প্রস্তুতিতে সচিনও আমার কাছে একটা উদাহরণ, অনুপ্রেরণা।”

তবে পদকের আগে আরও গুরুত্বপূর্ণ একটা লক্ষ্য মেরিকে পূরণ করতে হবে। তা হল টোকিও অলিম্পিক্সে অংশ নেওয়ার যোগ্যতা অর্জন করতে হবে। মেরি বলেছেন, “আগে টোকিওয়ে নামার যোগ্যতা অর্জন করি। তারপর পদকের রং নিয়ে ভাবব।“

মণিপুরের এই বক্সার ২০০৬-এ পদ্মশ্রী হয়েছিলেন। তারপর ২০১৩-তে পদ্মভূষণ পেয়েছিলেন। টোকিও অলিম্পিক্সে নামার যোগ্যতা নিশ্চিত করতে ছয় বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ইতিমধ্যে শুরু করে দিয়েছেন বাড়তি পরিশ্রম। মণিপুরে নিজের অ্যাকাডেমিতে তিনি বিশেষভাবে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত জনা কয়েক মণিপুরের এই বক্সার ২০০৬-এ পদ্মশ্রী হয়েছিলেন। তারপর ২০১৩-তে পদ্মভূষণ পেয়েছিলেন। টোকিও অলিম্পিক্সে নামার যোগ্যতা নিশ্চিত করতে ছয় বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ইতিমধ্যে শুরু করে দিয়েছেন বাড়তি পরিশ্রম। মণিপুরে নিজের অ্যাকাডেমিতে তিনি বিশেষভাবে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত জনা কয়েক পুরুষ বক্সারের সঙ্গে অনুশীলন করছেন। একইভাবে নয়াদিল্লিতে জাতীয় শিবিরেও দিনের মধ্যে বেশ কয়েক ঘণ্টা মেরি অপেক্ষাকৃত শক্তিশালী পুরুষ বক্সারদের সঙ্গে ট্রেনিং করছেন।