রবিবার, ডিসেম্বর 6, 2020
Home সাম্প্রতিক মাথার খুলিতে ঢুকে গেল জ্যাভেলিনের টুকরো, পক্ষাঘাতে আক্রান্ত ১১ বছরের ছেলে

মাথার খুলিতে ঢুকে গেল জ্যাভেলিনের টুকরো, পক্ষাঘাতে আক্রান্ত ১১ বছরের ছেলে

শরীরের বাঁ দিকটা পক্ষাঘাতে আক্রান্ত হয়ে গিয়েছে। ওকে আরও বেশ কয়েকদিন হাসপাতালে রেখে দেখতে হবে।

মর্মান্তিক ঘটনা। হাওড়ার শ্যামপুরে। নয়ন চন্দ্র বিদ্যাপীঠ স্কুলের ১১ বছরের ছাত্র সৌরজিৎ বেরা। স্কুলের বার্ষিক গেমসে অংশ নিয়েছিল সে। সেখানেই ঘটে যায় মর্মান্তিক ঘটনাটি। একটি জ্যাভেলিন সোজা ঢুকে যায় তার মাথার মধ্যে! স্কুলের প্রধান শিক্ষক অরুনাভ বাজানি জানিয়েছেন, সৌরজিৎ খেয়াল করেনি জ্যাভেলিন ইভেন্টটা শুরু হয়ে গিয়েছে। সে তার মধ্যেই মাঠের ওই অংশে ঢুকে পড়েছিল না দেখে। একইসময়ে এক প্রতিযোগী জ্যাভেলিনটি ছুঁড়ে দিয়েছে। সেটা সোজা সৌরজিতের মাথায় এসে লাগে এবং খুলির মধ্যে ঢুকে যায়। সঙ্গে সঙ্গে তাকে কলকাতার পি জি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। চিকিৎসকরা প্রায় এক ঘণ্টা ধরে সৌরজিতের মাথায় অস্ত্রোপচার করে। তাতে মাথার খুলির ভেতর থেকে জ্যাভেলিনের কাঠের টুকরোটি বার করা সম্ভব হয়েছিল। কিন্তু সৌরজিতের শরীরের বাঁ দিকের অংশটি সাড়া দিচ্ছে না। চিকিৎসকদের বক্তব্য, ‘‘ওর শরীরের বাঁ দিকটা পক্ষাঘাতে আক্রান্ত হয়ে গিয়েছে। ওকে আরও বেশ কয়েকদিন হাসপাতালে রেখে দেখতে হবে আমাদের।’’

কিছু দিন আগে একই রকমের ঘটনা ঘটেছিল উত্তর অসমের ছাবুয়া জেলায়। সেখানকার স্পোর্ট অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার (সাই) সেন্টারে এক ১২ বছর বয়সী মেয়ে তিরন্দাজের মাথার ভেতরে ঢুকে গিয়েছিল ছোড়া তির। মেয়েটির নাম শিবাঙ্গিনি গোহেন। সেই মেয়েটিকে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় বিমানে উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল নয়াদিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সে (এমস)। চিকিৎসকরা অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে শিবাঙ্গিনির মাথায় ঢুকে যাওয়া তিরের টুকরো বার করেন এবং মেয়েটির জীবনও বাঁচিয়ে দেন। শিবাঙ্গিনি তার কয়েক সপ্তাহ পর থেকে আবার ছাবুয়ার সাই কেন্দ্রে প্র্যাক্টিস করা শুরু করেছে। তবে সকলের ক্ষেত্রে ভাগ্য সুপ্রসন্ন হয় না। যেমন কেরলের ১৭ বছরের খেলোয়াড়ের মাথায় ছোড়া হ্যামার এসে লেগেছিল। রাজ্য জুনিয়র অ্যাথলেটিক্স টুর্নামেন্টে ঘটে যাওয়া সেই দুর্ভাগ্যজনক ঘটনার কয়েক সপ্তাহ পর ছেলেটি মারা যায়।