মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর 22, 2020
Home বক্সিং অলিম্পিক্সের প্রস্তুতিতে বিশ্বসেরা অমিতের বক্সিং পার্টনার বাংলার মনোজিৎ

অলিম্পিক্সের প্রস্তুতিতে বিশ্বসেরা অমিতের বক্সিং পার্টনার বাংলার মনোজিৎ

রিংয়ে নেমে তাঁকে যতটা লড়াই করতে হয়েছে, রিংয়ের বাইরে লড়তে হয়েছে তার থেকে অনেক বেশি। কিন্তু রিং এবং রিংয়ের বাইরের দুটো লড়াই জিতেই জাতীয় বক্সিংয়ে ব্রোঞ্জ পেয়েছেন। বাংলা থেকে ভারতের সিনিয়র জাতীয় শিবিরে সুযোগ পেয়েছেন তিনি। সেই বাংলার বক্সার মনোজিৎ কুমার সাউ এখন আরও একটি দায়িত্ব সামলাচ্ছেন। অলিম্পিক্সের প্রস্তুতিতে সাহায্য করছেন অমিত পাঙ্ঘালকে।

শিবপুরের বাসিন্দা মনোজিতের লড়াইটা শুরু হয়েছিল অনেক ছোট থেকেই। বাবা রিকশা চালাতেন, মা বাড়ি-বাড়ি রান্না করতেন। বছর খানেক আগে রিকশা চালাতে চালাতেই মারা যান মনোজিতের বাবা। বিনা চিকিৎসায়। মায়ের আর শরীরে সামর্থ্য নেই বাড়ি বাড়ি ঘুরে রান্না করার। কিন্তু দারিদ্রের এই ‘পাঞ্চ’ও নক আউট করতে পারেনি মনোজিতকে।

গত বছর জাতীয় বক্সিংয়ে ব্রোঞ্জ পাওয়া সেটাই প্রমাণ করে। এর পরে জাতীয় শিবিরেও জায়গা করে নিয়েছেন তিনি। যে শিবিরে প্রথম পর্বে ৫২ জন বক্সার ছিলেন। পরে কাটছাঁট হয়ে সংখ্যাটা দাঁড়ায় ৪০। দুই পর্বেই অমিতের ‘স্পারিং পার্টনার’ হিসেবে ছিলেন বাংলার মনোজিৎ। অর্থাৎ রিংয়ে অমিতের প্র্যাক্টিস-সঙ্গী। আগামী ১ মার্চ থেকে শুরু শিবিরেও সেই দায়িত্ব পালন করবেন তিনি।

কেন বক্সিংয়ে আসতে গেলেন? মনোজিৎ বলছিলেন, ‘‘ছোটবেলা থেকে আমি দেখতাম, পাশের শিবপুর পুলিশ লাইনে বক্সিং হচ্ছে। ওই সময় বিজেন্দ্র সিংহকে দেখতাম। দারুণ বক্সার। কোথা থেকে কোথায় উঠে এসেছে। ওকে দেখে দারুণ ভাবে অনুপ্রাণিত হয়েছিলাম। তখনই ঠিক করে নিই, আমাকেও কিছু করতে হবে বক্সিংয়ে।’’

আর এখন সেই অনুপ্রেরণা খোঁজেন অমিত পাঙ্ঘালের মধ্যে। অমিত আর তিনি— দু’জনেই ৫২ কেজি বিভাগের বক্সার। বিশ্বের এক নম্বর অমিতকে নিয়ে মনোজিৎ বলছেন, ‘‘অমিতও খুব ভাল বক্সার। ও অলিম্পিক্সে যাবেই। এমনকী পদক পেলেও অবাক হব না। ক্যাম্পে আমি ওর স্পারিং পার্টনার। তাই খুব ভাল করে জানি, ও কতটা দক্ষ বক্সার। পরের শিবিরেও ওর সঙ্গে কাজ করব।’’